ব্যাটে-বলে দুরন্ত কেকেআর, দিল্লিকে উড়িয়ে দিয়ে ইডেনে স্বস্তির জয় নাইটদের

Posted By:

ইডেন গার্ডেন্সে ঘরের মাঠে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসকে ৭১ রানে হারিয়ে স্বস্তির জয় পেল কলকাতা নাইট রাইডার্স। এদিন প্রথমে ব্যাট করে ৯ উইকেট হারিয়ে ২০০ রান তোলে কেকেআর। জবাবে ব্যাট করতে নেমে দিল্লি শেষ মাত্র ১২৯ রানে। চতুর্থ ম্যাচে অবশেষে স্বস্তির জয় ঘরে তুলল দীনেশ কার্তিকের দল।

ইডেন গার্ডেন্সে ঘরের মাঠে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসকে ৭১ রানে হারিয়ে স্বস্তির জয় পেল কলকাতা নাইট রাইডার্স। এদিন প্রথমে ব্যাট করে ৯ উইকেট হারিয়ে ২০০ রান তোলে কেকেআর। জবাবে ব্যাট করতে নেমে দিল্লি শেষ মাত্র ১২৯ রানে। চতুর্থ ম্যাচে অবশেষে স্বস্তির জয় ঘরে তুলল দীনেশ কার্তিকের দল। এদিন কেকেআর এর মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরা একে একে জ্বলে উঠলেন প্রায় সকলেই। রবীন উথাপ্পাকে দিয়ে শুরু হয়েছিল। তারপরে দীনেশ কার্তিক, নীতীশ রানা, আন্দ্রে রাসেল সকলের যৌথ প্রচেষ্টায় ৯ উইকেট হারিয়ে ২০০ রান করল কলকাতা। এদিন দিল্লি টসে জিতে কলকাতাকে প্রথমে ব্যাট করতে পাঠায়। ওপেন করতে নামেন ক্রিস লিন ও সুনীল নারিন। তবে এদিনও নারিন ব্যাট হাতে ব্যর্থ হন। ১ রানে ফিরে যান ট্রেন্ট বোল্টের বলে। দ্বিতীয় উইকেটে খেলা ধরে নেন লিন ও রবীন উথাপ্পা। উথাপ্পা ১৯ বলে ৩৫ করে ফেরেন। ক্রিস লিনও ২৯ বলে ৩১ রানে আউট হন মহম্মদ শামির বলে। এইসময়ে ফের মনে হচ্ছিল দিল্লি ম্যাচে ফিরে আসছে। তবে অন্যদিকে ভালো ব্যাট করছিলেন নীতীশ রানা। অধিনায়ক কার্তিক তাঁকে কিছুটা সঙ্গ দেন। তবে কার্তিক ১০ বলে ১৯ করে ফিরে গেলে ইডেনে ফের শুরু হয় রাসেল ঝড়। রাসেল ১২ বলে করে ৪১ রান। ট্রেন্ট বোল্টের বলে বোল্ড হয়ে তিনি যখন ফিরছেন, কলকাতার ততক্ষণে বড় রান করা নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে। নীতীশ রানা অনবদ্য অর্ধশতরান করেন। শেষপর্যন্ত ৩৫ বলে ৫৯ রান করে ফেরেন রানা। ১৯ ওভারে কলকাতা ১৯৯ রান তুলে ফেলেছিল। শেষ ওভারে ওটে মাত্র ১ রান। পড়ে ২টি উইকেট। ফলে ৮ উইকেটে ২০০ রানে শেষ হয় কলকাতার ইনিংস। দিল্লিকে জিততে হলে করতে হবে ২০ ওভারে ২০১ রান। রান তাড়া করতে নেমে দিল্লির শুরুটা ভালো হয়নি। প্রথম ওভারে জেসন রয়কে স্টাম্প আউট করেন পীযূষ চাওলা। দ্বিতীয় উইকেট পড়ে গৌতম গম্ভীরের। নবাগত শিবম মাভির বলে ৮ রানে আউট হয়ে ফেরেন তিনি। এরপরে আন্দ্রে রাসেলের বলে ৪ রানে আউট হয়ে ফেরেন শ্রেয়স আইয়ারও। ঋষভ পন্থ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল তারপরে খেলা ধরেন। পাল্টা আক্রমণ করে ওভার প্রতি দশ রান করে তুলতে থাকেন। পন্থ ৪৩ ও ম্যাক্সওয়েল ৪৭ রানে ফিরে যেতেই দিল্লি ব্যাটিং তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে। ৯৭ রানে ৫ উইকেট থেকে ১২৯ রানে শেষ হয়ে যায় দিল্লির ইনিংস। এদিন কলকাতার হয়ে সুনীল নারিন ১৮ রানে ৩টি ও কুলদীপ যাদব ৩২ রানে ৩টি উইকেট পেয়েছেন। একটি করে উইকেট পান পীযূষ চাওলা, আন্দ্রে রাসেল, শিবম মাভি ও টম কারান। এদিন জিতে চারটি ম্যাচ খেলে ২টিতে জিতে কলকাতা গ্রুপ টেবলে দ্বিতীয় স্থানে চলে গেল।

এদিন কেকেআর এর মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরা একে একে জ্বলে উঠলেন প্রায় সকলেই। রবীন উথাপ্পাকে দিয়ে শুরু হয়েছিল। তারপরে দীনেশ কার্তিক, নীতীশ রানা, আন্দ্রে রাসেল সকলের যৌথ প্রচেষ্টায় ৯ উইকেট হারিয়ে ২০০ রান করল কলকাতা।

এদিন দিল্লি টসে জিতে কলকাতাকে প্রথমে ব্যাট করতে পাঠায়। ওপেন করতে নামেন ক্রিস লিন ও সুনীল নারিন। তবে এদিনও নারিন ব্যাট হাতে ব্যর্থ হন। ১ রানে ফিরে যান ট্রেন্ট বোল্টের বলে। দ্বিতীয় উইকেটে খেলা ধরে নেন লিন ও রবীন উথাপ্পা।

উথাপ্পা ১৯ বলে ৩৫ করে ফেরেন। ক্রিস লিনও ২৯ বলে ৩১ রানে আউট হন মহম্মদ শামির বলে। এইসময়ে ফের মনে হচ্ছিল দিল্লি ম্যাচে ফিরে আসছে। তবে অন্যদিকে ভালো ব্যাট করছিলেন নীতীশ রানা। অধিনায়ক কার্তিক তাঁকে কিছুটা সঙ্গ দেন। তবে কার্তিক ১০ বলে ১৯ করে ফিরে গেলে ইডেনে ফের শুরু হয় রাসেল ঝড়।

রাসেল ১২ বলে করে ৪১ রান। ট্রেন্ট বোল্টের বলে বোল্ড হয়ে তিনি যখন ফিরছেন, কলকাতার ততক্ষণে বড় রান করা নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে। নীতীশ রানা অনবদ্য অর্ধশতরান করেন। শেষপর্যন্ত ৩৫ বলে ৫৯ রান করে ফেরেন রানা।

১৯ ওভারে কলকাতা ১৯৯ রান তুলে ফেলেছিল। শেষ ওভারে ওটে মাত্র ১ রান। পড়ে ২টি উইকেট। ফলে ৮ উইকেটে ২০০ রানে শেষ হয় কলকাতার ইনিংস। দিল্লিকে জিততে হলে করতে হবে ২০ ওভারে ২০১ রান।

রান তাড়া করতে নেমে দিল্লির শুরুটা ভালো হয়নি। প্রথম ওভারে জেসন রয়কে স্টাম্প আউট করেন পীযূষ চাওলা। দ্বিতীয় উইকেট পড়ে গৌতম গম্ভীরের। নবাগত শিবম মাভির বলে ৮ রানে আউট হয়ে ফেরেন তিনি। এরপরে আন্দ্রে রাসেলের বলে ৪ রানে আউট হয়ে ফেরেন শ্রেয়স আইয়ারও।

ঋষভ পন্থ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল তারপরে খেলা ধরেন। পাল্টা আক্রমণ করে ওভার প্রতি দশ রান করে তুলতে থাকেন। পন্থ ৪৩ ও ম্যাক্সওয়েল ৪৭ রানে ফিরে যেতেই দিল্লি ব্যাটিং তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে। ৯৭ রানে ৫ উইকেট থেকে ১২৯ রানে শেষ হয়ে যায় দিল্লির ইনিংস।

এদিন কলকাতার হয়ে সুনীল নারিন ১৮ রানে ৩টি ও কুলদীপ যাদব ৩২ রানে ৩টি উইকেট পেয়েছেন। একটি করে উইকেট পান পীযূষ চাওলা, আন্দ্রে রাসেল, শিবম মাভি ও টম কারান।

এদিন জিতে চারটি ম্যাচ খেলে ২টিতে জিতে কলকাতা গ্রুপ টেবলে দ্বিতীয় স্থানে চলে গেল।

ক্রিকেট ভালবাসেন? প্রমাণ দিন! খেলুন মাইখেল ফ্যান্টাসি ক্রিকেট

Story first published: Monday, April 16, 2018, 23:56 [IST]
Other articles published on Apr 16, 2018

পান মাইখেল-এর ব্রেকিং নিউজ অ্যালার্ট
mykhel Bengali