সাসপেন্ড সৌম্যজিৎ, কমনওয়েলথ গেমসের বাইরে বাংলার তরুণ অলিম্পিয়ান

ধর্ষণ ও গর্ভপাতের অভিযোগে সাসপেন্ড হলেন সৌম্যজিৎ ঘোষ। এর ফলে বাংলার এই টেবিল টেনিস অলিম্পিয়ানের কমনওয়েলথ গেমসে অংশ নেওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়ল। শিলিগুড়ির ছেলে সৌম্যজিৎ এই মুহূর্তে জার্মানিতে প্রস্তুতি শিবিরে রয়েছেন। ২২ মার্চ সৌম্যজিৎ-এর বিরুদ্ধে বারাসত থানায় এফআইআর দায়ের করেন এক তরুণী। এই এফআইআর-এ সৌম্যজিৎ-এর বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও গর্ভপাতের অভিযোগ এবং বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ আনেন।

প্রস্তুতিতে শেষ সৌম্যজিৎ-এর কমনওয়েলথ অভিযান

সৌম্যজিৎকে নিয়ে এদিন বৈঠকে বসেন টিটিএফআই-এর কর্তারা। সেখানেই শৃঙ্খলারক্ষা কমিটি বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় বসে। কারণ, সৌম্যজিৎ-এর বিরুদ্ধে ধর্ষণ, জোর করে গর্ভপাত এবং বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ রয়েছে। বারাসত থানায় সৌম্যজিৎ-এর বিরুদ্ধে যে যে ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে তাতে তাঁর গ্রেফতারি আশঙ্কা রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে সৌম্যজিৎ-কে দলে নিয়ে আইন-শৃঙ্খলার বিষয়টিকে জটিল করতে চাইছে না টিটিএফআই। তবে, সৌম্যজিৎ যাতে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণের সুযোগ পান সেই কারণে তাঁকে প্রবিশনাল সাসপেন্ডের সিদ্ধান্ত নেয় টিটিএফআই। সর্বভারতীয় টেবিল টেনিস অ্যাসোসিয়েনের কর্তাদের মতে, সৌম্যজিৎ নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে পারলে ফের জাতীয় দলে ফিরে আসবেন।

২২ মার্চ বারাসতের এক তরুণী সৌম্যজিৎ-এর বিরুদ্ধে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ আনেন। সেই সঙ্গে তাঁর আরও অভিযোগ ছিল সৌম্যজিৎ তাঁকে প্রথমে ধর্ষণও করে এবং এর জেরে তিনি গর্ভবতীও হয়ে পড়েছিলেন। সৌম্যজিৎ জোর করে গর্ভপাত করান। ওই তরুণীর দাবি, ফেসবুকের মাধ্যমে সৌম্যজিৎ-এর সঙ্গে কয়েক বছর আগে তাঁর আলাপ। এরপর ফেসবুক চ্যাট থেকে তা প্রেমের সম্পর্কে পরিণতি পেয়েছিল বলে তরুণীর দাবি। এই সম্পর্কের বেড়াজালেই সৌম্যজিৎ-এর সঙ্গে তাঁর একাধিকবার শারীরিক সম্পর্কও হয়। কিন্তু, নাবালিকা হওয়ায় সৌম্যজিৎ-এর সঙ্গে বিয়েতে নাকি রাজি ছিল না মেয়েটির পরিবার।

অভিযোগকারী তরুণীটির দাবি, পরে দুই পরিবারের মধ্যস্থতায় বিয়ের কথা হয়। কিন্তু, বছর দেড়েক আগে আচমকাই সৌম্যজিৎ সম্পর্কের যবনিকা টানে বলে অভিযোগ তরুণীটির। এমনকী, তাঁর আরও অভিযোগ বিয়ের কথা বলার সময় সৌম্যজিৎকে তাঁর পরিবার থেকে বেশকিছু জিনিস পণ হিসাবে দেওয়া হয়েছিল। তরুণীর অভিযোগ, সৌম্যজিৎ-এর একাধিক মেয়ের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক আছে।

কমনওয়েলথ গেমসে প্রস্তুতির জন্য এই মুহূর্তে জার্মানিতে সৌম্যজিৎ। বারাসতের ওই তরুণীর সঙ্গে সৌম্যজিৎ তাঁর সম্পর্কের কথা স্বীকার করে নিয়েছেন। কিন্তু, ওই তরুণী তাঁকে দিনের পর দিন নানাবাবে ব্ল্যাকমেল করছিল বলে অভিযোগ করেছেন শিলিগুড়ির এই অলিম্পিয়ান। তাঁর আরও অভিযোগ, ওই তরুণী তাঁকে নানাভাবে পরিবার থেকে আলাদা করার চেষ্টা করছিল এবং এতে তাঁর পারফরম্যান্সও প্রভাবিত হতে থাকে। পরে, ওই তরুণীর সঙ্গে সম্পর্ক শেষ করার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। সৌম্যজিৎ-এর বাবারও অভিযোগ, জোর করে তাঁর অলিম্পিয়ান ছেলেকে চক্রান্তের শিকার করা হচ্ছে। কিন্তু, তরুণীর বাবাও সৌম্যজিৎ ও তাঁর পরিবারের দাবি মানতে চাননি। তরুণীর বাবা জানিয়েছেন বিষটি জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শরণাপন্ন হচ্ছেন তিনি। অন্যদিকে, সৌম্যজিৎ জানিয়েছেন, বিষয়টি তিনি আইনি পথেই মোকাবিলা করবেন।

Story first published: Friday, March 23, 2018, 18:59 [IST]
Other articles published on Mar 23, 2018

পান মাইখেল-এর ব্রেকিং নিউজ অ্যালার্ট
mykhel Bengali